ঢাকা, বুধবার, ৬ই জুলাই, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ, ২২শে আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ৭ই জিলহজ, ১৪৪৩ হিজরি, রাত ৪:৫৪
বাংলা বাংলা English English

বুধবার, ৬ই জুলাই, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ, ২২শে আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

মৌলভীবাজারে পানির নিচে ৫০০ হেক্টর জমির ফসল


টানা বর্ষণ ও পাহাড়ি ঢলের জলাবদ্ধতায় মৌলভীবাজারের সীমান্ত উপজেলা কমলগঞ্জের তিনটি ইউনিয়নের প্রায় ৫০০ হেক্টর জমির কাঁচা-পাকা বোরো ফসল পানিতে নিমজ্জিত হয়ে পড়েছে। একই সঙ্গে আদমপুর ইউনিয়নের নিম্নাঞ্চলের বেশকিছু বাড়ি-ঘরে পানি ঢুকে পড়েছে। এতে চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে এ এলাকার মানুষদের।
এরই মধ্যে উঁচু স্থান থেকে পানি সরে পড়ছে। গেল কয়েকদিনের টানা বর্ষণ ও পাহাড়ি ঢলে মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জ উপজেলার পাহাড়ি ছড়া (খাল) লাউয়াছড়ার বেশ কয়েকটি স্থানে ফাটল ও ভাঙনের সৃষ্টি হয়। এতে ছড়া থেকে পানি ঢুকে আদমপুরের প্রায় ১২টি গ্রামের নিম্নাঞ্চলে জলাবদ্ধতা দেখা দিয়েছে।

স্থানীয়রা জানান, আদমপুর ইউনিয়নের প্রায় ১৫০ হেক্টরের মতো জমির কাঁচা-পাকা বোরো ফসল পানিতে তলিয়ে গেছে।

কৃষকরা জানান, আগামজাতের কিছু বোরো ধান তারা কয়েকদিন আগে জমি থেকে কেটেছেন। তবে তাদের এ এলাকায় দেরিতে বোরো ধান চাষ করাতে এখন জমির অধিকাংশ ধানই কাঁচা-পাকা। আকস্মিক এমন বর্ষণ ও জলাবদ্ধতায় তাদের বিপাকে ফেলে দিয়েছে।

এদিকে এ ছড়ার (খাল) পানিতে আদমপুর উত্তরভানু বিল, গোড়ামাড়া, কোনাগাঁও ও নয়াপত্তন গ্রামের বেশকিছু বাড়ি ঘরে পানি ঢুকে পড়েছে। পানিবন্দি লোকজন দুইদিন ধরে চরম দুর্ভোগে রয়েছেন। অনেকে বৃষ্টিপাত ও ঘরে জলাবদ্ধতার কারণে ধান শুকাতে পারছেন না। সেই সঙ্গে গৃহপালিত গরু-ছাগল-হাঁস-মুরগি নিয়েও পড়েছেন বেকায়দায়।

 

অপরদিকে প্রবল বর্ষণে লাঘাটা খাল উপচে মুন্সিবাজার, পতনউষা ইউনিয়নের প্রায় ৪০০ হেক্টর জমির বোরো ফসল পানিতে তলিয়ে গেছে। এ ছাড়া কমলগঞ্জ সদর ও কমলগঞ্জ পৌরসভা এলাকার বেশকিছু অংশে জলাবদ্ধতা দেখা দিয়েছে।

কৃষি বিভাগ জানিয়েছে, ইতোমধ্যে ৬৫ শতাংশ ধান কাটা শেষ হয়েছে। সরেজমিনে আদমপুর উত্তর ভানুবিল গ্রামের আনোয়ার, গৃহিণী শুষ্কাসহ একাধিক জনের সঙ্গে কথা হয় এ প্রতিবেদকের়।

মো. আনোয়ার জানান, শুধু আদমপুরেই প্রায় ১৪টি গ্রামের আধা-পাকা বোরো ফসল পানিতে তলিয়েছে।

গৃহিণী শুষ্কা জানান, তাদের বাড়ির সাতটি ঘরে পানি উঠেছে। লাউয়াছড়ার এ খালের বিভিন্ন স্থানে ভাঙন দেখা দেওয়ায় পাহাড়ি পানি এসে জলাবদ্ধতার সৃষ্টি করেছে।

তিনি জানান, কাঁচা-পাকা বোরো ধান পানিতে নিমজ্জিত হওয়ার পাশাপাশি তাদের বাড়ির তিনটি পুকুরের মাছ পানিতে ভেসে গেছে।

এদিকে মনু ও ধলাই নদীর পানি এখনো বিপদসীমার নিচ দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। তবে যেভাবে নদীর পানি বাড়ছে-এতে ধলাই নদীর ঝুঁকিপূর্ণ বাঁধ ভেঙে বন্যার আশঙ্কা করছেন নদীপাড়ের লোকজন।

সব খবর