ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ৭ই জুলাই, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ, ২৩শে আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ৮ই জিলহজ, ১৪৪৩ হিজরি, বিকাল ৩:৪৫
বাংলা বাংলা English English

ভালুকা একাডেমিক সুপারভাইজারের বিরুদ্ধে সরকারী অর্থ আত্মস্বাৎতের অভিযোগ


ময়মনসিংহ জেলার ভালুকা উপজেলাধীন একাডেমি সুপারভাইজার মাসুমা সুলতানা খানমের বিরুদ্ধে সরকারী অর্থ আত্মস্বাৎ ও শিক্ষক হয়রানীর অভিযোগ উঠেছে।
গত ২২/৫/২০২২ ইং তারিখ মহা পরিচালক, মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা ভবন, ঢাকা বরাবর একটি লিখিত অভিযোগ দাখিল করা হয়।
অনুসন্ধান করে জানা যায় অভিযুক্ত একাডেমিক সুপারভাইজার সরকারি ভাবে প্রাপ্ত মটর সাইকলটি নিজে না চালিয়ে স্বামীর মাধ্যমে বিক্রি করে দেন। বিক্রিত অর্থ সরকারি কোষাগারে জমা না দিয়ে নিজের বাসা ক্রয়ের কাজে ব্যাবহার করেন।
বর্তমানে তার মটর সাইকেল না থাকায়, সিএনজি, প্রাইভেট কার যোগে প্রতিষ্ঠান প্রদর্শন করেন, গাড়ি ভাড়ার কৌশল বাবদ প্রতিষ্ঠান হতে মোটা অংকের টাকা হাতিয়ে নিচ্ছেন।

বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ম্যানেজিং কমিটির নির্বাচনে প্রিসাইডিং অফিসারের দ্বায়িত্ব পালন কালে মনোনয়ন ফর্মের ফ্রী বাবদ কমপক্ষে পাঁচ হাজার টাকা নির্ধারন করেন,অতপর কুটকৌশল করে নির্বাচন ভন্ডোল করে উক্ত অর্থ প্রতিষ্ঠানে জমা না দিয়ে নিজে আত্মসাৎ করে চলছেন।
ফলে বহু প্রতিষ্ঠানে দারুণ বিশৃঙ্খলা বিদ্যমান।

প্রতিষ্ঠান কর্তৃক আই.এম.এস.ফরম আই.এস. এ.এস.ফরম পূরণ করার কথা থাকলেও দূর্নীতিবাজ একাডেমিক সুপারভাইজার প্রতিষ্ঠান প্রধান গনকে ডেকে এনে জুর পূর্বক দুই থেকে পাঁচ হাজার টাকার বিনিময়ে উক্ত ফরম গুলো নিজে পূরণ করে চলছেন।

যাহা তার দ্বায়িত্বের প্ররিপন্থি।
এছাড়াও কতিপয় অসাধু প্রভাবশালী ব্যাক্তির ছত্রছায়াই নানাবিধ অপকর্মে লিপ্ত রয়েছেন। অফিস চলাকালীন সময়ে বেশির ভাগ সময়েই তাকে অফিসে পাওয়া যায়না তার এহীন কর্মকান্ডে সরকারের গৃহীত শিক্ষা কার্যক্রম দারুণ ভাবে ব্যাহত হচ্ছে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বহু প্রতিষ্ঠান প্রধান ও সাধারণ শিক্ষক তার দ্বারা হয়রানি শিকার হয়েছেন বলে শিকার করেছেন।

মুঠোফোনে উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার বলেন অভিযোগ টি তদান্তাধীন, তদন্তের পর বলা যাবে।

অভিযোক্ত মাসুমা সুলতানা খানম বলেন, অভিযোগ প্রমাণিত হলে আমরা যা শাস্থি হয় মেনে নিব।

অভিযোগ টি যথাযথ তদন্ত পূর্বক দ্বায়ী ব্যাক্তির বিরুদ্ধে প্রচলিত আইনে যথাযোগ্য শাস্থি হবে, ভালুকার শিক্ষক ও সুশীল সমাজ ইহাই প্রত্যাশা করে।

সব খবর