ঢাকা, বুধবার, ৬ই জুলাই, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ, ২২শে আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ৭ই জিলহজ, ১৪৪৩ হিজরি, রাত ৩:২১
বাংলা বাংলা English English

বুধবার, ৬ই জুলাই, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ, ২২শে আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

আট বছর আগের ভেন্যুতে ফেরা হবে বিজয়ের?


ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে দ্বিতীয় টেস্টে অনুশীলনে এনামুল বিজয়। তাহলে কি দ্বিতীয় টেস্টে জায়গা পেয়ে গেছেন তিনি? ক্যারিবীয়দের বিপক্ষে দ্বিতীয় টেস্টে জায়গা হবে কি না, তা পরে জানা যাবে। তার আগে গণমাধ্যমের মুখোমুখি হয়েছেন তিনি। সেখানে বিজয় জানালেন, সুযোগ পেলে নিজের সেরাটা দেয়ার চেষ্টা করবেন।

আট বছর আগে এই ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষেই শেষ টেস্ট ম্যাচটি খেলেছিলেন বিজয়। আবারও সেই এই প্রতিপক্ষের বিপক্ষে দলে ফেরার সুযোগ, এ নিয়ে কী ভাবছেন তিনি। বিজয় বললেন, ‘তেমনভাবে ভাবিনি আমি। তবে সবসময় চিন্তা করেছি দেশের হয়ে খেলব। আবার সুযোগ এসেছে আমার কাছে নিজেকে প্রমাণ করার। ফলে নিজের সেরাটা দেয়ার চেষ্টা করব।’

 

ফার্স্ট ক্লাসে নিজেকে প্রমাণ করেই জাতীয় দলের জন্য ডাক পেয়েছেন বিজয়। তা নিয়ে বেশ খুশি ২৯ বছর বয়সী এই ব্যাটার। বিজয় বলেন, ‘আমি খুশি যে নিজেকে একটা জায়গায় নিয়ে গিয়েছি। প্রথম শ্রেণির খেলা আমাকে অভিজ্ঞতা জুগিয়েছে, যা আমি কাজে লাগাতে চাই। আমি আশাবাদী আমার এই অভিজ্ঞতাটা কাজে লাগাতে পারব।’

অনেক দিন বিজয় খেলে আসছেন সাদা বলের ক্রিকেট। তবে এবার যদি সুযোগ পান তিনি তাহলে খেলতে হবে লাল বলে। তবে লাল বলেও খেলার জন্য প্রস্তুত বিজয়। জানালেন, লাল বলেও অনুশীলন করেছেন তিনি।

বিজয় বলেন, ‘এটা সত্য আমি সাদা বলে কম ম্যাচ খেলেছি। তবে আমি সাদা বলে নিয়মিত অনুশীলন করছিলাম। কিন্তু আমি আগেও বলেছি আমি টেস্ট ক্রিকেটটা অনেক বেশি পছন্দ করি। এটা আমার মধ্যে একধরনের প্যাশনেট কাজ করে। আর টেস্টে যখনই সুযোগ পাব, সেখানে ভালো খেলার চেষ্টা করব। আপনি জানেন দীর্ঘ ৮ বছর পর আমি জাতীয় দলে সুযোগ পেয়েছি, তাই আমি এখন নিজেকে প্রমাণ করার চেষ্টা করব। আমি আমার খেলার মাঝে কোনো পরিবর্তন আনছি না। ফার্স্ট ক্লাসে যেভাবে খেলেছি সে ধারায়ই খেলার চেষ্টা করব।’

এদিকে বাংলাদেশের হয়ে যদি বিজয়ের ফেরা হয়, তাহলে তাকে খেলতে হবে শান্ত অথবা মুমিনুলের জায়গায়। যেখানে দুজনই বেশ কিছুদিন ধরেই ব্যর্থ। এমন পজিশনে খেলার জন্য নিজেকে কেমন ভাবে প্রস্তুত করেছেন তাও জানালেন বিজয়।

এনামুল হক বিজয় বলেন, ‘আমি প্রথমেই ভাবছি, যদি আমি সুযোগ পাই, তাহলে আমি আমার সেরাটা দেয়ার চেষ্টা করব। আমি যেন একটা ভালো খেলা উপহার দিতে পারি বাংলাদেশের জন্য সেটাই চেষ্টা করব। আমার চেষ্টা থাকবে যেই পজিশনেই খেলি না কেন, ব্যাটিংয়ে নেমে বাংলাদেশের দ্রুত উইকেট পরে যাওয়া থামানো।’

 

এদিকে বিজয়কে দারুণভাবে বরণ করে নিয়েছে দল। দল থেকে বাদ পড়ার পর অনেকে নতুন দলে ঢুকেছে। আবার অনেকে পুরাতন রয়ে গেছে। আর এই দলটি বাংলাদেশকে ভবিষ্যতে অনেক দূরে নিয়ে জেতে পারবে বলে মনে করেন বিজয়।

সব খবর