ঢাকা, বুধবার, ৬ই জুলাই, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ, ২২শে আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ৭ই জিলহজ, ১৪৪৩ হিজরি, রাত ৪:১১
বাংলা বাংলা English English

বুধবার, ৬ই জুলাই, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ, ২২শে আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

৮ বছর পর সেন্ট লুসিয়ায় নামার অপেক্ষায় সাকিবরা


অ্যান্টিগায় হতাশার হারের পর সিরিজের দ্বিতীয় ও শেষ টেস্ট খেলতে টিম বাংলাদেশ এখন অবস্থান করছে সেন্ট লুসিয়ায়। ৮ বছর পর যে ভেন্যুতে খেলতে নামার অপেক্ষায় সাকিব আল হাসানরা। এই ভেন্যুর সবশেষ স্মৃতিটা টাইগারদের জন্য তিক্ত-ভুলে যাওয়ার মতো। কোনো প্রকার লড়াই ছাড়াই স্বাগতিকদের কাছে হারতে হয়েছিল ২৯৬ রানের বড় ব্যবধানে। মাঝের লম্বা এ সময়ে বদলেছে অনেক কিছুই। তবে বদলায়নি এ ফরম্যাটে বাংলাদেশের অসহায়ত্ব।

ক্যারিবীয় দ্বীপে টাইগারদের এবারের গন্তব্য সেন্ট লুসিয়া। অ্যান্টিগায় পরাজয়ের ক্ষত নিয়েই, এ দ্বীপে পাড়ি জমাল টিম বাংলাদেশ। ৮ বছরের দীর্ঘ বিরতির পর যেখানে খেলতে নামার অপেক্ষায় লাল-সবুজরা।

 

মাঝের এ সময়টাতে বদলে গেছে অনেক কিছু। সে সময়ের গ্রস আইলেট, এখন নাম বদল করে পরিণত হয়েছে ড্যারেন স্যামি ন্যাশনাল ক্রিকেট স্টেডিয়ামে। দুদলের ক্রিকেটারদের মাঝেও এসেছে পরিবর্তন। সেই ম্যাচে খেলা মাত্র ৩ ক্রিকেটার থাকতে পারেন এবারের টাইগার একাদশে।

এ তিনজনের মাঝে এনামুল হক বিজয়ের জন্য ম্যাচটি বিশেষভাবে আলাদা হয়ে থাকবে। অ্যান্টিগায় ব্যাটারদের ব্যর্থতায়, তার অন্তর্ভুক্তি এখন সময়ের ব্যাপার। ক্যারিয়ারের সবশেষ টেস্ট এই সেন্ট লুসিয়াতেই খেলেছিলেন বিজয়। তবে তার অন্তর্ভুক্তি দল থেকে ছিটকে দিতে পারে মুমিনুল হককে।

বাংলাদেশের এ তিনজনের মতো, ক্যারিবীয় স্কোয়াডেও অপরিবর্তিত মুখ রয়েছে। অ্যান্টিগায় ম্যাচসেরা কেমার রোচ, ৮ বছর আগের ম্যাচটিতেও ভুগিয়েছিলেন বাংলাদেশকে। দুই ইনিংস মিলিয়ে একাই নিয়েছিলেন ৬ উইকেট।

তবে এসব বদলে যাওয়ার মিছিলে বদলায়নি একটি জিনিস। আর তা হলো, সাদা পোশাকে বাংলাদেশের ব্যর্থতার চিত্রটা। ক্যারিবীয় দ্বীপে সে অসহায় আত্মসমপর্ণে প্রশ্ন ওঠেছিল বাংলাদেশি ব্যাটারদের যোগ্যতা নিয়ে। শর্ট বলে পরাস্ত কিংবা ক্রিজে থিতু হওয়ার মানসিকতা নিয়ে। এত বছর পরও, সেই প্রশ্নগুলো এখনো উঁকি দেয় প্রতি ম্যাচ শেষে।

৮ বছর আগে-পরের হিসেবে, বদল এসেছে বাংলাদেশের নেতৃত্বভারেও। মুশফিকুর রহিমের হাত থেকে, অধিনায়কত্বের ব্যাটনটা এবার সাকিব আল হাসানের হাতে। দেশের ক্রিকেটের পোস্টারবয়ের হাত ধরেই সেন্ট লুসিয়ায় লজ্জার এক রেকর্ড এড়ানোর চেষ্টা সফরকারীদের। এ ম্যাচে হারলেই যে ১৩৪ ম্যাচে শততম হারের লজ্জায় পুড়বে টাইগাররা।

 

সব খবর