ঢাকা, বুধবার, ৬ই জুলাই, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ, ২২শে আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ৭ই জিলহজ, ১৪৪৩ হিজরি, রাত ৪:২৩
বাংলা বাংলা English English

বুধবার, ৬ই জুলাই, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ, ২২শে আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

সিটি ইকোনমিক জোনে হবে ১০ হাজার মানুষের কর্মসংস্থান


দেশের দ্বিতীয় বৃহত্তর অর্থনৈতিক জোন ‘সিটি ইকোনমিক জোন’-এর অবকাঠামো উন্নয়নের ৭৬০ কোটি টাকা ঋণ বিনিয়োগ করেছে বিশ্বব্যাংকসহ দেশের বেসরকারি ১০ ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠান। এতে বেসরকারিভাবে হলেও এ জোনের মাধ্যমে আরও অর্থনৈতিক সমৃদ্ধি ঘটবে, সেই সঙ্গে দেশি-বিদেশি বিনিয়োগে ১০ হাজার মানুষের কর্মসংস্থান হবে।

সিটি ইকোনমিক জোন। নারায়ণগঞ্জের রূপসী শীতলক্ষ্যা নদীর তীরে বেসরকারি শিল্পপ্রতিষ্ঠান সিটি গ্রুপের এক অত্যাধুনিক অর্থনৈতিক অঞ্চল।

২০১৮ সালের ২৩ জানুয়ারি ব্যক্তিমালিকানাধীন অর্থনৈতিক অঞ্চল হিসেবে সিটি ইকোনমিক জোনকে লাইসেন্স দেয় বাংলাদেশ অর্থনৈতিক অঞ্চল কর্তৃপক্ষ (বেজা)। ৭৭ দশমিক ৯৬ একরের এ ভূমিতে ইতিমধ্যে সিটি ইকোনমিক জোনের অবকাঠামো উন্নয়নের ৭৬০ কোটি টাকা ঋণ বিনিয়োগ করেছে বিশ্বব্যাংকসহ দেশের বেসরকারি ৮ ব্যাংক ও দুটি আর্থিক প্রতিষ্ঠান। এর মধ্যে বিশ্বব্যাংকের ৩৪০ কোটি টাকা, যা আইপিএফএফ টু প্রকল্পে বাস্তবায়ন করছে বাংলাদেশ ব্যাংক।

এ নিয়ে বুধবার (২২ ‍জুন) রাতে বনানীর শেরাটন হোটেলে এক অনুষ্ঠানে সিটি গ্রুপের পরিচালক মোহাম্মদ হাসান জানান, এ অথর্নৈতিক অঞ্চল প্রতিষ্ঠায় ১০ হাজার কোটি টাকা বিনিয়োগ করা হচ্ছে।

তিনি বলেন, এ অর্থনৈতিক অঞ্চল প্রতিষ্ঠা এবং এতে বিভিন্ন শিল্প স্থাপনা গড়ে ‍তুলতে প্রায় ১০ হাজার কোটি টাকারও বেশি বিনিয়োগ করা হচ্ছে। এতে নতুন করে ১০ হাজার মানুষের কর্মসংস্থান হবে।

অনুষ্ঠানে বিশ্বব্যাংকসহ বেসরকারি আর্থিক প্রতিষ্ঠান ও ব্যাংকের প্রতিনিধিরা বলেন, অর্থনৈতিক জোন হলে আরও অর্থনৈতিক উন্নয়নের পাশাপাশি বাড়বে পণ্য রফতানিও। আইডিএলসি ফাইন্যান্স লিমিটেডের সিইও ও এমডি জামাল উদ্দিন বলেন, আমরা যদি অন্যদেরও এখানে বিনিয়োগে আকর্ষণ করতে পারি তাহলে বাংলাদেশের অর্থনীতিতে অর্থনৈতিক জোনের অবদান উল্লেখযোগ্য হয়ে উঠবে।

এ সময় বিশ্বব্যাংকের সিনিয়র ফিন্যান্সিয়াল ইকোনমিস্ট এ কে এম আবদুল্লাহ বলেন, আমরা সিটি গ্রুপের সাফল্য কামনা করি। এ অর্থায়নের মাধ্যমে এ গ্রুপটি অনেক দূর এগিয়ে যাবে।

সিটি ইকোনমিক জোনে পরিসর বাড়ানোর কথা জানান প্রতিষ্ঠানের চেয়ারম্যান ফজলুর রহমান। তিনি বলেন, দুটি জোনের কাজ ইতোমধ্যে সম্পন্ন হওয়ার পথে। এগুলোর কাজ এ বছর বা আগামী বছরের মাঝামাঝিতে শেষ হয়ে যাবে। ৩ নম্বর জোনের কাজ শুরু হয়েছে।

এদিকে মুন্সিগঞ্জের গজারিয়ায় ১০৮ একর জমির ওপর সিটি গ্রুপের হোসেনদি ইকোনমিক জোনের কাজ চলছে দ্রুতগতিতেই, যা শেষ হবে ২০২৪ সাল নাগাদ। রূপগঞ্জে আগামী বছর পূর্বগাঁও ইকোনমিক জোনের কাজ শুরু হবে। এ ছাড়া কোনাপড়া ডেমরাতেও হাইটেক পার্ক স্থাপন করবে এ গ্রুপ।

 

সব খবর