ঢাকা, মঙ্গলবার, ১৬ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ, ১লা ভাদ্র, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ১৮ই মহর্‌রম, ১৪৪৪ হিজরি, সন্ধ্যা ৭:৫০
বাংলা বাংলা English English
শিরোনাম:

মঙ্গলবার, ১৬ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ, ১লা ভাদ্র, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

২৭ বছরে মৌসুমী-ওমর সানী


তারকাদের প্রেম-বিয়ে আর সংসার মানেই তাসের ঘর! এই আছে তো এই নেই। দীর্ঘদিন প্রেম, তারপর বিয়ে কিছুদিন পরেই ডিভোর্স! এটাই নিয়মিত মুখচ্ছবি হয়ে উঠেছে তারকাদের ব্যক্তিগত সম্পর্কগুলোর। তবে এসবের মধ্যেও ব্যতিক্রম ওমর সানী ও মৌসুমী। দীর্ঘ ২৭ বছর একই ছাদের নিচে আনন্দে দাম্পত্য জীবন অতিবাহিত করছেন তারা। যদিও মাঝে পার করেছেন অনেক ঝড় ঝাপটা।

মঙ্গলবার (২ আগস্ট) ছিল ওমর সানী ও মৌসুমীর ২৭তম বিবাহবার্ষিকী। বিশেষ দিনটিতে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভক্তদের বার্তা দিয়েছেন সানী। লিখেছেন, ‘আল্লাহ একসাথে থাকার তৌফিক দান করুন বাকি জীবন। শুভ বিবাহবার্ষিকী মৌসুমী।’

বিবাহবার্ষিকীতে সানী-মৌসুমীকে শুভেচ্ছা জানিয়েছেন বিনোদন জগতের অনেকেই। গায়িকা দিনাত জাহান মুন্নী লিখেছেন, ‘শুভ বিবাহবার্ষিকী প্রিয় জিজু/মৌ।’

অভিনেতা মুকিত জাকারিয়া লিখেছেন, ‘অনেক ভালো থাকবেন আপনারা সবসময় দোয়া করি।’ এ ছাড়াও তাদেরকে শুভেচ্ছা জানিয়েছেন নির্মাতা মোস্তাফিজুর রহমান মানিক, অভিনেত্রী গোলাম ফরিদা ছন্দা, নায়িকা শিরীন শিলা, বিপাশা কবিরসহ আরও অনেকে।

১৯৯২ সালে কেয়ামত থেকে কেয়ামত ছবির মহরতে প্রথম দেখা হয় মৌসুমী-ওমর সানীর। সেখান থেকেই ভালো লাগা ও ভালোবাসা শুরু। প্রথমে মৌসুমীকে ভালোলাগার কথা মাকে জানান ওমর সানী নিজেই। অন্যদিকে ওমর সানীকেও যে নিজের মনে ধরেছে তা নিজের নানিকে জানান মৌসুমী। এভাবেই প্রেমের সম্পর্ক বেশি দূর এগুনোর আগেই ১৯৯৫ সালে ৪ মার্চ পারিবারিকভাবে বিয়ে করেন এ তারকা যুগল।

শুরুতে দুজন পরিচালক ছাড়া কেউ জানতেন না মৌসুমী ও ওমর সানীর বিয়ের কথা। তবে কয়েক মাস পর অন্তঃসত্ত্বা হয়ে গেলে আনুষ্ঠানিকভাবে সবাইকে নিজেদের বিয়ের কথা জানিয়ে দেন এ তারকা জুটি। এরপর ১৯৯৬ সালের ২ আগস্ট মহা ধুমধামে মৌসুমীকে আনুষ্ঠানিকভাবে বাসায় তুলে নেন ওমর সানী। ফারদিন ও ফাইজা নামে দুই সন্তানের জনক-জননী ওমর সানী ও মৌসুমী।

নব্বইয়ের দশক ও পরবর্তী সময়ে মৌসুমী-ওমর সানীর কোনো সিনেমা মুক্তি পেলে দর্শকদের মধ্যে তা দেখার হিড়িক পড়ে যেত। ওমর সানী-মৌসুমী জুটির প্রথম চলচ্চিত্র ছিল ‘দোলা’। ছবিটি ১৯৯৪ সালে মুক্তি পায়। এরপর এ জুটি অভিনীত উল্লেখযোগ্য চলচ্চিত্রগুলো হচ্ছে ‘আত্ম অহংকার’, ‘প্রথম প্রেম’, ‘মুক্তির সংগ্রাম’, ‘হারানো প্রেম’, ‘গরিবের রানী’, ‘প্রিয় তুমি’, ‘সুখের স্বর্গ’, ‘মিথ্যা অহংকার’, ‘ঘাত প্রতিঘাত’, ‘লজ্জা’, ‘কথা দাও’ ‘স্নেহের বাঁধন’ ইত্যাদি।

সব খবর