ঢাকা, শনিবার, ১৩ই জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ২৯শে আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ৭ই মহর্‌রম, ১৪৪৬ হিজরি, সকাল ১০:১২
বাংলা বাংলা English English

টেক্টরের সেঞ্চুরিতে আয়ারল্যান্ডের সংগ্রহ ৬ উইকেটে ৩১৯ রান


১২ মে ২০২৩ : ডান-হাতি ব্যাটার হ্যারি টেক্টরের বিধ্বংসী সেঞ্চুরিতে বাংলাদেশের বিপক্ষে তিন ম্যাচ সিরিজের দ্বিতীয় ওয়ানডেতে টস হেরে প্রথমে ব্যাট করে নির্ধারিত ৪৫ ওভারে ৬ উইকেটে ৩১৯ রানের বড় সংগ্রহ পেয়েছে আয়ারল্যান্ড। ১১৩ বলে ৭টি চার ও ১০টি ছক্কায় ১৪০ রান করেন টেক্টর। আয়ারল্যান্ডের পক্ষে ওয়ানডেতে এক ইনিংসে সর্বোচ্চ ছক্কা রেকর্ডও গড়েন তিনি। টেক্টরের সাথে ৪৭ বলে অপরাজিত ৭৪ রানের মারমুখী ইনিংস খেলেছেন জর্জ ডকরেল।
ইংল্যান্ডের চেমসফোর্ডের কাউন্টি গ্রাউন্ডে বৃষ্টি বিঘিœত ম্যাচের দৈর্ঘ্য ৪৫ ওভারে নামিয়ে আনা হয়। টস জিতে প্রথমে বোলিং করার সিদ্বান্ত নেন বাংলাদেশ অধিনায়ক তামিম ইকবাল। বল হাতে বাংলাদেশকে দারুণ সূচনা এনে দেন পেসার হাসান মাহমুদ।
প্রথম ওভারের পঞ্চম বলে ইনসুইংয়ে পল স্টার্লিংকে পরাস্ত করেন হাসান। স্টার্লিং রক্ষণাত্মক ভঙ্গিতে খেললে বাঁ-দিকে ঝাপিয়ে বল হাতে মুঠোয় নেন উইকেটরক্ষক মুশফিকুর রহিম। আউটের আবেদন করে বাংলাদেশ। আম্পায়ার সাড়া না দিলে রিভিউ নেন তামিম। রিভিউতে আল্ট্রা-এজে দেখা যায় বল ব্যাট স্পর্শ করেছে। ২ বল খেলে শূন্যতে বিদায় নেন স্টার্লিং।
শুরুর সাফল্যে আত্মবিশ^াসী হাসান নিজের চতুর্থ ওভারেও উইকেটের দেখা পান। পয়েন্টে মেহেদি হাসান মিরাজকে ক্যাচ দিয়ে ১২ রানে আউট হন আয়ারল্যান্ডের আরেক ওপেনার স্টিভেন ডোহেনি।
১৬ রানে ২ উইকেট হারিয়ে চাপে পড়ে আয়ারল্যান্ড। এ অবস্থায় দলের হাল ধরেন অধিনায়ক অ্যান্ড্রু বলবির্নি ও হ্যারি টেক্টর। বাংলাদেশের বোলারদের দারুণভাবে সামলে দলকে চাপমুক্ত করেন তারা। ২০তম ওভারে বাংলাদেশের স্পিনার তাইজুলকে তিনটি ছক্কা মারেন হেক্টর। ৫২ বলে ওয়ানডে ক্যারিয়ারের নবম হাফ-সেঞ্চুরি পূর্ণ করেন তিনি। পরের ওভারে আয়ারল্যান্ড রান ১শ’তে পৌঁছে।
২৪তম ওভারে বাংলাদেশকে ব্রেক-থ্রু এনে দেন পেসার শরিফুল ইসলাম। উইকেটের পেছনে ক্যাচ দিয়ে আউট হন ৫টি চারে ৪২ রান করা বলবির্নি। তৃতীয় উইকেটে ১০৪ বলে ৯৮ রানের জুটি গড়েন বলবির্নি-টেক্টর।
বলবির্নির পর লরকান টাকারকে ১৬ রানে বিদায় করেন শরিফুল। ছয় নম্বরে নামা কার্টিস ক্যাম্ফারকে ৮ রানে থামান তাইজুল। ১৬৭ রানে পঞ্চম উইকেট পড়লেও আয়ারল্যান্ডের রানের চাকা ঘুড়িয়েছেন টেক্টর। ৯২ বল খেলে ওয়ানডে ক্যারিয়ারের ৩১তম ম্যাচে চতুর্থ সেঞ্চুরির দেখা পান টেক্টর। ২০২২ সালের জুলাই থেকে ৯ ইনিংসে চতুর্থ সেঞ্চুরি করলেন ২০২০ সালের অভিষেক হওয়া টেক্টর। আগের তিনটি নিউজিল্যান্ড (২টি) ও জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে।
সেঞ্চুরি পর আরও মারমুখী হয়ে উঠেন টেক্টর। ৩৭তম ওভারে তাইজুলে বলে দু’টি ছক্কা মারেন টেক্টর। পরের ওভারে শরিফুলকে ৩টি ছক্কায় ২৪ রান তুলেন জর্জ ডকরেল।
ডকরেলের সাথে ষষ্ঠ উইকেটে ৬৮ বলে ১১৫ রান যোগ করে থামেন টেক্টর। ৪২তম ওভারে পেসার এবাদতের বলে বোল্ড হন টেক্টর। আউট হওয়ার আগে ৭টি চার ও ১০টি ছক্কায় ১১৩ বলে ১৪০ রান করেন তিনি। এটি বাংলাদেশের বিপক্ষে আয়ারল্যান্ডের কোন ব্যাটারের সর্বোচ্চ ব্যক্তিগত ইনিংস। সেই সাথে আয়ারল্যান্ডের হয়ে এক ম্যাচে সর্বোচ্চ ছক্কার রেকর্ডও গড়েন টেক্টর। এতে ভেঙ্গে যায় ২০১৯ সালে আফগানিস্তানের বিপক্ষে ১৪৫ রানের অপরাজিত ইনিংস খেলার পথে ৮টি ছক্কা মারা বলবির্নির রেকর্ড।
দলীয় ২৮২ রানে টেক্টর ফেরার পর আয়ারল্যান্ডকে রানের চূড়ায় বসিয়েছেন ডকরেল ও মার্ক অ্যাডায়ার। ৪৫ ওভারে ৬ উইকেটে ৩১৯ রানের বিশাল সংগ্রহ পায় আইরিশরা। নিজেদের ওয়ানডে ইতিহাসে দশম ও বাংলাদেশের বিপক্ষে সর্বোচ্চ দলীয় রান পেল আয়ারল্যান্ড।
ওয়ানডেতে চতুর্থ হাফ-সেঞ্চুরির ইনিংসে ৩টি চার ও ৪টি ছক্কায় ৪৭ বলে অপরাজিত ৭৪ রান করেন ডকরেল। ২টি ছক্কায় ৮ বলে অপরাজিত ২০ রান করেন অ্যাডায়ার। বাংলাদেশের হাসান ৪৮ ও শরিফুল ৮৩ রানে ২টি করে উইকেট নেন। এবাদত ৫৬ ও তাইজুল ৫৯ রানে ১টি করে শিকার করেন। সাকিব ৯ ও মিরাজ ২ ওভার বল করে উইকেটশূন্য থাকেন।

সব খবর