ঢাকা, বুধবার, ১৯শে জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ৫ই আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ১৩ই জিলহজ, ১৪৪৫ হিজরি, সকাল ৯:৪১
বাংলা বাংলা English English

জামালপুরে বিএনপি-জামায়াতের নৈরাজ্যের প্রতিবাদে হোসনে আরার এমপির নেতৃত্বে বিক্ষোভ


ঢাকায় সমাবেশের নামে বিএনপি-জামায়াতের নৈরাজ্যের প্রতিবাদে জামালপুর-শেরপুরের সংরক্ষিত আসনের মহিলা এমপি হোসনে আরার নেতৃত্বে জামালপুরের ইসলামপুর উপজেলায় নারী বিক্ষোভ মিছিল ও শান্তি সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে।

শুক্রবার (২৯ জুলাই) দুপুরে ইসলামপুর পৌর শহরস্থ সরকারি ইসলামপুর কলেজ প্রাঙ্গন থেকে বিক্ষোভ মিছিলটি বের হয়ে থানা মোড় বটতলা চত্বরে শেষ হয়। পরে সেখানে শান্তি সমাবেশ করে তাঁরা।

শান্তি সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এমপি হোসনে আরা বলেন, ‘আজ শুক্রবার ঢাকায় সমাবেশের নামে বিএনপি-জাময়াত নৈরাজ্যের সৃষ্টি করেছে। শেখ হাসিনার উন্নয়নকে বাঁধাগ্রস্ত করতে সারা দেশে বিএনপি-জামায়াতের নৈরাজ্য, অগ্নি সংযোগ ও ষড়যন্ত্রের প্রতিবাদে আমরা রাজপথে নেমে এসেছি। আওয়ামী লীগ সরকারকে উৎখাত করতে বিএনপি-জামায়াত ষড়যন্ত্র করে যাচ্ছে। তাদের ষড়যন্ত্র মানুষ বোঝে ফেলেছে। আগামী দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নৌকা মার্কায় ভোট দিয়ে শেখ হাসিনাকে আবারও প্রধানমন্ত্রী বানাতে হবে।’

জামালপুর-২ ইসলামপুর আসনের আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশী এমপি হোসনে আরা বলেন, ‘আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় থাকলে দেশে উন্নয়ন হয়। দেশের মানুষ ভালো থাকে। বিএনপি-জামায়াত দেশের উন্নয়ন বোঝে না। তারা জ্বালাও-পোড়াও ছাড়া আর কিছুই জানে না।’

শান্তির নামে অনুষ্ঠিত সমাবেশে কৃষক লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সহসভাপতি এমপি হোসনে আরা আরও বলেন, ‘বিএনপি-জামায়াত জোট সরকার দুর্নীতি করে দেশটাকে ভঙ্গুর বানিয়ে ছিলো। তারা হাজার হাজার কোটি টাকা বিদেশে পাচার করেছে। তাই বিএনপি-জামায়াতকে ভোট দেওয়া যাবে না।’

এমপি হোসনে আরা উপস্থিত জনতাকে উদ্দেশে বলেন, ‘ইসলামপুর আসনে সংসদ নির্বাচনে দল যাঁকে নৌকা প্রতীক মনোনয়ন দেবে, আপনারা তাঁকেই ভোট দেবেন। দল যদি আমাকে মনোনয়ন দেয়, তবে আপনারা আমাকে ভোট দেবেন। আপনারা নৌকা মার্কায় ভোট দিয়ে শেখ হাসিনার হাতকে শক্তিশালী করবেন।’

এ সময় অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য দেন ইসলামপুর পৌর আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি নুর ইসলাম নুর, উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক আহ্বায়ক সুজন মিয়া, স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা মাহমুদুল হাসান মামুন, ছাত্রলীগ নেতা আব্দুল্লাহ আল সিনার প্রমুখ।

বিক্ষোভ মিছিল ও শান্তি সমাবেশে অন্তত তিন শতাধিক নারী অংশ নেন।

 

সব খবর