ঢাকা, বুধবার, ১৯শে জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ৫ই আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ, ১৩ই জিলহজ, ১৪৪৫ হিজরি, সকাল ১১:১৯
বাংলা বাংলা English English

সাভারে দুই সাংবাদিকের বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা


ফাইল ছবি

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ছবি ব্যবহার করে মিথ্যা সংবাদ প্রকাশ করার অভিযোগ এনে সাভার থেকে প্রকাশিত দৈনিক ফুলকি পত্রিকার সম্পাদক নাজমুস সাকিবসহ দুই জনের বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা দায়ের করা হয়েছে।

শনিবার (২৯ জুলাই) ভোরে সাভার মডেল থানায় মামলাটি রেকর্ড করা হয়। মামলার অপর আসামি হলেন ইমদাদুল হক। তিনি দৈনিক আমাদের নতুন সময় পত্রিকার সাভার সংবাদদাতা।

সাভারের বিরুলিয়ার শ্যামপুরের বাসিন্দা শাহীনুর ইসলাম ওরফে ধ্রুব নয়ন নামে এক ব্যক্তি বাদী হয়ে মামলাটি করেছেন।

আজ রোববার বিকেলে সাভার মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) দীপক চন্দ্র সাহা বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

মামলার বিবরণ অনুযায়ী, গত ২৭ জুলাই দৈনিক ফুলকি পত্রিকায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ছবি ব্যবহার করে ‘অবশেষে পদত্যাগ করছেন এশিয়ার সবচেয়ে দীর্ঘমেয়াদি প্রধানমন্ত্রী’ শিরোনামে মিথ্যা বানোয়াট ও ভিত্তিহীন একটি সংবাদ প্রকাশ করা হয়। গণমাধ্যমের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন এবং রাজনৈতিক পরিস্থিতিকে উসকে দেওয়ার উদ্দেশ্যে এ ধরনের সংবাদ প্রকাশ করা হয়েছে। এ জন্য মামলাটি করেন বলে বাদী উল্লেখ করেছেন।

জানা যায়, গত ২৭ জুলাই ফুলকি পত্রিকায় কম্বোডিয়ার প্রধানমন্ত্রীর পদত্যাগ নিয়ে ‘অবশেষে পদত্যাগ করছেন এশিয়ার সবচেয়ে দীর্ঘ মেয়াদি প্রধানমন্ত্রী’ শিরোনামের খবর প্রকাশ করে। এই খবরে প্রাধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ছবি ছাপা হয়।

পরদিন পত্রিকায় সংশোধনী প্রকাশ করে বলা হয়, ভুল করে কম্বোডিয়ার প্রধানমন্ত্রীর জায়গায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ছবি ছাপা হয়েছে। এর জন্য দুঃখ প্রকাশ করে ক্ষমা চান ফুলকির সম্পাদক নাজমুস সাকিব। সংশোধনী প্রকাশের পর সম্পাদকের বিরুদ্ধে মামলাটি দায়ের করা হয়।

মামলার আসামি ইমদাদুল হক বলেন, আমার সঙ্গে ফুলকির কোনো সম্পর্ক নেই। আমি বহুদিন ধরে আমাদের নতুন সময় পত্রিকার স্থানীয় সংবাদদাতা হিসেবে কাজ করছি। হীন উদ্দেশ্যে আমার নামে মামলা করা হয়েছে।

জানতে চাইলে সাভার প্রেসক্লাবের সভাপতি ও ফুলকির সম্পাদক নাজমুস সাকিব বলেন, আমি পবিত্র হজ পালন করে ৪১ দিন পর ২৫ জুলাই দেশে আসি। পর দিন ২৬ জুলাই রাতে পত্রিকার পেছনের পাতায় কম্বোডিয়ার প্রধানমন্ত্রীর পদত্যাগের নিউজটি বসানো হয়। সেখানে ভুলবশত প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ছবি যুক্ত করা হয়। ভুল সংশোধন এবং ক্ষমা প্রার্থনা করে পরদিন ২৮ জুলাই সংশোধনী প্রকাশ করা হয়। ক্ষমা চেয়ে সংশোধনী দেওয়ার পরও মামলা করাটা উদ্দেশ্যপ্রণোদিত। এভাবে কণ্ঠ চেপে ধরা হলে দেশে সংবাদপত্র প্রকাশ করা দুঃসাধ্য হয়ে পড়বে।

মামলার বিষয়টি নিশ্চিত করে সাভার মডেল থানার ওসি দীপক চন্দ্র সাহা বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ছবি ব্যবহার করে মিথ্যা, বানোয়াট ও ভিত্তিহীন সংবাদ প্রকাশ করায় মামলাটি রেকর্ড করা হয়েছে। বিষয়টি গুরুত্ব দিয়ে তদন্ত করে ঘটনায় জড়িতদের আইনের আওতায় আনা হবে।

 

সব খবর